মুশফিককে নিয়ে মাহমুদউল্লাহর মুখে কুলুপ

প্রকাশিত: 5:38 AM, November 19, 2021

মুশফিককে নিয়ে মাহমুদউল্লাহর মুখে কুলুপ
স্পোর্টস ডেস্কঃ ২০০৬ সালে জাতীয় দলের হয়ে প্রথম টি-২০ ম্যাচ খেলেছিলেন মুশফিকুর রহিম। ওই ম্যাচের পর গত ১৫ বছরে এ ফরম্যাটে ৯৯টি ম্যাচ খেলেছেন তিনি। রুগ্ন ব্যাটিং গড় (১৯.৭৯) নিয়েও টি-টোয়েন্টিতে স্থায়ী ছিলেন মুশফিক। সদ্য সমাপ্ত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ৮ ম্যাচে ১৪৪ রান করেছেন তিনি। দলকে ডুবিয়েছেন অহেতুক স্কুপ, রিভার্স সুইপ শট খেলে উইকেট দিয়ে।

এমন ব্যর্থতার পর পাকিস্তানের বিপক্ষে হোম সিরিজের টি-টোয়েন্টি দল থেকে বাদ পড়েছেন মুশফিক। ১৩ বছর পর দল থেকে তার বাদ পড়ার বিষয়টি সরাসরি বলেননি নির্বাচকরা। সংবাদ সম্মেলনে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু অভিজ্ঞ এ ক্রিকেটারকে সম্মান দিয়ে বলেছেন, মুশফিককে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে। এটা টিম ম্যানেজমেন্ট, নির্বাচক, কোচসহ সবার সম্মিলিত সিদ্ধান্ত। যদিও পরে গণমাধ্যমে মুশফিক বলেছেন, তাকে বাদ দেওয়া হয়েছে, এটা বললেই ভালো হতো।

মুশফিকের বাদ পড়া নিয়ে অবশ্য মুখ খুললেন না টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তিনি বলেছেন, টিম ম্যানেজমেন্টকে এ বিষয়ে প্রশ্ন করতে। অবাক করা বিষয় হলো, অধিনায়ক নিজেই টিম ম্যানেজমেন্টের অংশ। কিন্তু মাহমুদউল্লাহর উত্তর বলছে, টিম ম্যানেজমেন্টের অংশ নন তিনি। তার কথায় স্পষ্ট ইঙ্গিত সিদ্ধান্তটা বাকিরা নিয়েছেন, যেখানে তার সায় ছিল না। তবে তিন ম্যাচের সিরিজে মুশফিককে মিস করবেন বলেই জানান তিনি।

টি-টোয়েন্টি দল থেকে মুশফিকের বাদ পড়া সম্পর্কে জানতে চাইলে মাহমুদউল্লাহ সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ‘এটা টিম ম্যানেজমেন্টের কাউকে প্রশ্ন করলে সম্ভবত ভালো হবে।’

গণমাধ্যমে মুশফিকের মন্তব্যের কথা তুলতেই থামিয়ে দিয়ে মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘দেখেন মুশফিক কি বলেছে আমি নিজেও জানিনা। আগে দেখি, তারপর সম্ভবত এ নিয়ে কিছু বলতে পারবো।’

পরোক্ষভাবে ভায়রা ভাইয়ের বাদ পড়ায় নিজের বিরাগের বিষয়টি স্পষ্ট করে দেন বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক। তিনি বলেছেন, ‘আসলে এটা পুরোটাই টিম ম্যানেজমেন্টের সিদ্ধান্ত। আমি নিজে এই মুহূর্তে আসলে এটা নিয়ে কিছু বলতে চাচ্ছি না। তবে এতটুকু বলতে পারি যে আমরা অবশ্যই মুশফিককে মিস করতে যাচ্ছি।’

মাহমুদউল্লাহর ক্যারিয়ারও ২০১৪ সালে বাজে ফর্মের কারণে সংকটে পড়েছিল। তখন অধিনায়কের দায়িত্বে থাকা মুশফিকই অগ্রজকে তখন সরাসরি সমর্থন দিয়ে দলে রেখেছিলেন। এবার অনুজের ক্ষেত্রে যেটা পারেননি মাহমুদউল্লাহ।