বার্সেলোনার ৪ গোলে জয়ের দিনে পিএসজির ড্র

ন্যু ক্যাম্পে রোববার লা লিগার ম্যাচে রিয়াল ভাইয়াদলিদকে ৪-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে বার্সেলোনা। এদিন টানা দ্বিতীয় ম্যাচে জোড়া গোলের দেখা পেলেন বার্সেলোনার রবের্ত লেভানদোভস্কি। আক্রমণভাগে আলো ছড়ালেন তার সতীর্থরাও। ম্যাচের প্রায় পুরোটা সময় প্রতিপক্ষকে কোণঠাসা করে রেখে আরেকটি সহজ জয় তুলে নিল বার্সা।
ম্যাচের দ্বাদশ মিনিটেই গোলের দেখা পেতে পারতো বার্সেলোনা। তবে ডান দিক থেকে রাফিনিয়ার ক্রসে লেভানদোভস্কির হেড দূরের পোস্টে বাধা পায়। তারপরও সুযোগ ছিল। বল ওই পোস্টে লেগে চলে আসে আরেক পোস্টের কাছে, কিন্তু প্রয়োজনীয় টোকাটা দিতে পারেননি পোলিশ তারকা।

২২তম মিনিটে তাদের সামনে আবারও দুর্ভাগ্য বাধা হয়ে দাঁড়ায়। এবার উসমান দেম্বেলের জোরাল শট ক্রসবার কাঁপায়। দ্বিতীয় দফায় সুবর্ণ সুযোগ নষ্টের দুই মিনিট পর অপেক্ষা শেষ হয় বার্সেলোনার। ডান দিক থেকে রাফিনিয়ার বাড়ানো ক্রস দূরের পোস্টের বাইরে দিয়ে বেরিয়ে যাচ্ছিল, শেষ মুহূর্তে পা ছুঁইয়ে বলের দিক পাল্টে উল্লাসে মাতেন লেভানদোভস্কি।

৪৩তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন পেদ্রি। ডান দিক দিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে প্রতিপক্ষের বাধা এড়িয়ে পেনাল্টি স্পটের কাছে বল বাড়ান দেম্বেলে। আর প্রথম ছোঁয়ায় জোরাল শটে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন স্প্যানিশ মিডফিল্ডার। দারুণ নৈপুণ্যে ৬৩তম মিনিটে ব্যবধান আরও বাড়ান লেভানদোভস্কি। দেম্বেলের ছোট করে বাড়ানো বল বক্সে পেয়ে আলতো দুই ছোঁয়ায় নিয়ন্ত্রণে নেয়ার মাঝেই অসাধারণ এক ব্যাকহিলে সঙ্গে লেগে থাকা ডিফেন্ডারের পায়ের ফাঁক গলে লক্ষ্যে পাঠান গত দুইবারের ফিফা বর্ষসেরা ফুটবলার।

এদিকে লিগ আ-তে মোনাকোর সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করেছে মেসি-নেইমার-এমবাপ্পের পিএসজি। এই মৌসুমে লিগে এই প্রথম পয়েন্ট হারালেন মেসিরা।

পরপর তিনটা ম্যাচ যে দাপটের সঙ্গে খেলেছিল পিএসজি, আজ সেটার ধারেকাছেও যেতে পারেনি। প্রথমার্ধ শেষ হওয়ার কয়েক মিনিট আগ পর্যন্ত পিএসজিকে ম্যাচেই খুঁজে পাওয়া যায়নি। ততক্ষণে মোনাকো এগিয়ে গেছে। আলেকসান্দর গোলোভিনের পাস থেকে কেভিন ভলান্ড দুর্দান্ত গোলটা যখন করেন, ম্যাচের বয়স ২০ মিনিট। ভলান্ড অবশ্য এরপর বেশিক্ষণ মাঠে ছিলেন না। চোট পেয়ে উঠে যান মিনিট পাঁচেক পরেই।

বিরতির পর কিছুটা ধার ফেরে পিএসজির খেলায়। কিন্তু এমবাপ্পে-মেসিরা তারপরেও সমর্থকদের মুখে হাসি ফোটানো মুহূর্ত উপহার দিতে পারছিলেন না। অবশেষে সেই সময়টা আসে ম্যাচের ৭০ মিনিটে। ডি-বক্সে নেইমারকে ফাউল করায় পেনাল্টি আবেদন করে পিএসজি। ভিএআর দেখে রেফারি সেই আবেদন যৌক্তিক মনে করলেন।

স্পট কিক থেকে সমতা ফেরানো গোলটা করেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড নিজেই। লিগে এ নিয়ে সর্বশেষ ৬ ম্যাচেই গোল পেলেন নেইমার। এ মৌসুমে লিগের ৪ ম্যাচে ৬ গোলের পাশাপাশি আরও ৬টি গোল করিয়েছেন ব্রাজিল তারকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *