খুলনায় সাম্প্রদায়িক সহিংসতা: ৪টি মন্দির ও সংখ্যালঘুদের বাড়ি-ঘর, দোকান ভাংচুর

প্রকাশিত: 11:43 AM, August 8, 2021

খুলনায় সাম্প্রদায়িক সহিংসতা: ৪টি মন্দির ও সংখ্যালঘুদের বাড়ি-ঘর, দোকান ভাংচুর
নিউজ ডেস্কঃ খুলনার রূপসা উপজেলার শিয়ালী গ্রামে চারটি মন্দির এবং হিন্দু সম্প্রদায়ের বেশ কিছু দোকান ও কয়েকটি বাড়িতে ভাঙচুর চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা।

শনিবার বিকেল পৌনে ৬টার দিকে শতাধিক দুর্বৃত্ত দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ওই গ্রামে হামলা চালায়। এ সময় চারটি মন্দির, ছয়টি দোকান ও একটি বাড়ি ভাঙচুর করা হয়। খবর পেয়ে পুলিশ সুপারসহ ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পুরো গ্রামে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে; পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

গ্রামবাসী ও পূজা পরিষদের নেতারা জানান, শুক্রবার রাত ৯টার দিকে পূর্বপাড়া মন্দির থেকে কয়েকজন নারীভক্ত কীর্তন করতে করতে শিয়ালী মহাশ্মশানের দিকে যাচ্ছিলেন। পথের মাঝে একটি মসজিদ ছিল। মসজিদের ইমাম নারীদের কীর্তন করতে নিষেধ করেন। তখন কিছুটা তর্কাতর্কি হয়। বিষয়টি নিয়ে শনিবার থানায় বৈঠক হওয়ার কথা ছিল।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শনিবার বিকেল পৌনে ৬টার দিকে শতাধিক যুবক রামদা, চাপাতি, কুড়াল নিয়ে শিয়ালী গ্রামে হামলা চালায়। তারা অতর্কিতে বাজারের গণেশ মল্লিকের ওষুধের দোকান, শ্রীবাস মল্লিকের মুদি দোকান, সৌরভ মল্লিকের চা ও মুদি দোকান, অনির্বাণ হীরার চায়ের দোকান ও তার বাবা মজুমদারের দোকান ভাঙচুর করে। এ সময় শিবপদ ধরের বাড়িতে হামলা চালিয়ে লুটপাট করা হয়। তার বাড়ির গোবিন্দ মন্দির, শিয়ালী পূর্বপাড়া হরি মন্দির, শিয়ালী পূর্বপাড়া দুর্গা মন্দির, শিয়ালী মহাশ্মশান মন্দিরের বেশিরভাগ প্রতিমা ভাঙচুর করা হয়। এ সময় কয়েকজন বাধা দিতে গেলে তাদের পিটিয়ে আহত করা হয়। এলাকাবাসী প্রতিরোধ তৈরি করার আগেই যুবকরা পালিয়ে যায়।

হামলার পরেই ঘটনাস্থলে ছুটে যান ঘাটভোগ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাধন অধিকারী। তিনি বলেন, এভাবে মন্দির ও বাড়ি ভাঙচুরের ঘটনা এর আগে কখনও হয়নি। পাশের চাঁদপুর গ্রামের যুবকরা এই ভাঙচুরে অংশ নেয়। তিনি বলেন, পুলিশ সুপার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, সার্কেল এসপি, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সবাই ঘটনাস্থলে এসেছেন। আমরা ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা ঘুরে দেখছি।

খুলনার পুলিশ সুপার মাহবুব হাসান বলেন, ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন আছে এবং সবকিছু নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। স্থানীয় মানুষকে নিয়ে আমরা কাজ করছি।