স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে পর্যাপ্ত পরিমান দ্বিতীয় ডোজ নেই

প্রকাশিত: 9:59 AM, April 18, 2021

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে পর্যাপ্ত পরিমান দ্বিতীয় ডোজ নেই

নিউজ ডেস্কঃ প্রথম ডোজ নেওয়া সবাইকে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার মতো করোনার টিকা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের হাতে নেই। টিকার পরবর্তী চালান কবে আসবে, তা কেউ বলতে পারছেন না। এই পরিস্থিতিতে জাতীয় টিকা প্রয়োগ পরিকল্পনা ঠিকভাবে বাস্তবায়িত হচ্ছে না।

দেশে এখন একই সঙ্গে করোনা টিকার প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া চলছে। গতকাল সব মিলিয়ে মোট ২ লাখ ৩৩ হাজার ৭৭৩ জনকে টিকা দিয়েছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা। এর মধ্যে প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে ১২ হাজার ১৫৭ জনকে। দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে ২ লাখ ২১ হাজার ৬১৬ জনকে।

এদিকে টিকার মজুত দ্রুতই ফুরিয়ে আসছে। গতকাল পর্যন্ত সারা দেশে টিকার মজুত ছিল ৩৪ লাখ ৪৯ হাজার ১৯১ ডোজ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) ও টিকাবিষয়ক কমিটির প্রধান মীরজাদী সেব্রিনা বলেন, ‘পরিকল্পনা অনুযায়ী টিকা দেওয়া যাচ্ছে না। বয়সসীমা কমিয়ে আরও ব্যাপক জনগোষ্ঠীকে টিকার আওতায় আনার পরিকল্পনা ছিল। টিকার স্বল্পতার কারণে তা হচ্ছে না। ভারত থেকে টিকা আনার ব্যাপারে উচ্চপর্যায়ে আলোচনা চলছে।”

সারা দেশে করোনা টিকা দেওয়ার নির্দেশিকা হিসেবে কাজ করছে জাতীয় কোভিড-১৯ টিকা প্রয়োগ পরিকল্পনা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা অনুসরণ করে এই পরিকল্পনা তৈরি করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। পরিকল্পনায় করোনা মোকাবিলায় সম্মুখসারির কর্মীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা দেওয়ার কথা বলা আছে। এর পাশাপাশি সরকার ঘোষণা দেয়, ৪০ বছর বা তার বেশি বয়সী যেকোনো নাগরিক টিকার জন্য নিবন্ধন করতে পারবেন। ধীরে ধীরে বয়সসীমা আরও কমিয়ে আনা হবে।

পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রথম পর্যায়ের প্রথম ধাপে ৩ শতাংশ অর্থাৎ ৫১ লাখ ৮৪ হাজার মানুষকে টিকা দেওয়া শেষ করেছে গত সপ্তাহে এবং প্রথম পর্যায়ের দ্বিতীয় ধাপে ৭ শতাংশ মানুষকে টিকা দেওয়ার কথা। অর্থাৎ প্রথম পর্যায়ে ১ কোটি ৭২ লাখ ৮০ হাজার মানুষকে টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছিল।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক গত কয়েক মাসে একাধিক অনুষ্ঠানে ও সভায় সরকারের টিকা সংগ্রহের তৎপরতার কথা বারবার বলেছেন। তিনি বলেছেন, টিকা উৎপাদনকারী বিভিন্ন কোম্পানি ও দেশের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে। টিকা কেনার জন্য পর্যাপ্ত অর্থও বরাদ্দ আছে।

অন্যদিকে করোনার টিকা সংগ্রহ ও বিতরণের বৈশ্বিক উদ্যোগ কোভ্যাক্স থেকে টিকা পাওয়ার নির্দিষ্ট কোনো সময় জানতে পারছেন না স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। তাঁরা বলছেন, এ বছর কোনো একটা সময় কোভ্যাক্স থেকে টিকা পাওয়া যাবে। তবে জুন মাসের আগে সেটির আপাতত সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না।