স্পোর্টস ডেস্কঃ আর্জেন্টিনার জার্সিতে তারা দীর্ঘদিনের সঙ্গী। একসঙ্গে জিতেছেন অনূর্ধ্ব-২০ বিশ্বকাপ ও অলিম্পিক। তবে ক্লাব ফুটবলে সার্জিও আগুয়েরা-লিওনেল মেসির একত্রে খেলার সুযোগ কখনও হয়ে ওঠেনি।

এবার আগুয়েরার বার্সেলোনায় যোগ দেওয়ার মাধ্যমে যা বাস্তব হওয়ার পথে। কিন্তু আগুয়েরা এলেও মেসিই যদি চলে যান? বার্সার সঙ্গে মেসির চলমান চুক্তি শেষ হয়ে যাচ্ছে জুনে। এরপরও থাকবেন কিনা, এখন পর্যন্ত নিশ্চিত নয়। তবে আগুয়েরা আশাবাদী, মেসি কাতালুনিয়ায় থেকে যাবেন; দু’জনে একসঙ্গে নিয়মিত ট্রেনিংও করতে পারবেন।

বিগত দশ বছর ম্যানচেস্টার সিটিতে কাটানো আগুয়েরা সোমবার বার্সেলোনার সঙ্গে দুই বছরের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন। বার্সেলোনা খেলোয়াড় হিসেবে আত্মপ্রকাশের দিনে অন্যান্য প্রশ্নের পাশাপাশি মেসিকেন্দ্রিক কথা বলতে হয়েছে আগুয়েরাকে। ৩২ বছর বয়সী এই স্ট্রাইকারকে জিজ্ঞেস করা হয় তার বার্সায় যোগ দেওয়া মেসির থেকে যাওয়ার ইঙ্গিত কিনা? জবাবে আগুয়েরা সরাসরি মন্তব্য না করে বলেন, ‘আশা করি আমরা একসঙ্গে খেলতে পারব। তবে লিওর (মেসি) সিদ্ধান্তের বিষয়টি ক্লাবের সঙ্গে জড়িত। ওর সঙ্গে খেলতে পারাটা আনন্দের ব্যাপার। যদি সে থাকে, যেটা আমি মনে করছি থাকবে, তাহলে ক্লাবের জন্য বড় কিছু অর্জনে নিজেদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব আমরা।’

দেশের হয়ে বয়সভিত্তিক দল থেকে একসঙ্গে খেলার সুবাদে মেসি-আগুয়েরার ঘনিষ্ঠতা বেশ ভালো। বার্সায় যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্তের পর সর্বশেষ কী কথা হয়েছে দু’জনের মধ্যে- সেটি জানাতে গিয়ে আগুয়েরা বলেন, ‘প্রতিদিনই তো কথা হয়। তবে কী নিয়ে হয়েছে সেটি তো এখন বলতে পারব না। (হাসতে হাসতে) সর্বশেষ মেসেজে সে আমাকে চুক্তির জন্য অভিনন্দন জানিয়েছে।’

১৪ বছর বয়স থেকে বার্সায় খেলার স্বপ্ন দেখেছেন বলে জানান প্রিমিয়ার লিগে সর্বোচ্চ গোল করে আসা আগুয়েরা, ‘আমার কাছে বার্সেলোনাই বিশ্বসেরা ক্লাব। প্রেসিডেন্টকে (লাপোর্তা) বলছিলাম যে, আমি ছোটবেলায়ই বলেছিলাম এক দিন বার্সায় আমায় ঠিকই ডাকবে। আর আজ আমি চলে এলাম। বার্সা থেকে যখন আমার এজেন্টের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলো, আমি কোনো দ্বিধা না করেই বলেছি, ব্যস আর কোনো ক্লাবের সঙ্গে কথা বলার দরকার নেই। কারণ ১৪ বছর বয়স থেকেই আমি বার্সায় খেলতে আগ্রহী।’