বন্ধ হচ্ছে কালো টাকা সাদা করার অবাধ সুযোগ

প্রকাশিত: 7:10 AM, May 27, 2021

বন্ধ হচ্ছে কালো টাকা সাদা করার অবাধ সুযোগ

নিউজ ডেস্কঃ  গত এক যুগ ধরে প্রতি বছর বাজেটে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দিয়ে আসছে সরকার। করোনাকালীন অর্থপ্রবাহ বাড়াতে চলতি অর্থবছরের বাজেটে ১০ শতাংশ কর দিয়ে কালো টাকা সাদা করার ঢালাও সুযোগ দেয়া হয়। কিন্তু এবার কালো টাকা সাদা করায় লাগাম টানছে সরকার। অর্থনীতিবিদ, সৎ করদাতাদের দাবির মুখে বন্ধ হচ্ছে কালো টাকা সাদা করার অবাধ সুযোগ। এছাড়া দেশীয় শিল্প সুরক্ষায় কর ছাড়ের পাশাপাশি দেশে উৎপাদন হয় এমন পণ্য আমদানিতে করারোপ করা হচ্ছে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ও অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে এমন তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, চলতি অর্থবছরে কালো টাকা সাদা করার অবাধ সুযোগ নিয়েছেন অনেক করদাতা। এর থেকে সরকার রাজস্ব পেয়েছে প্রায় ৮৮০ কোটি টাকা। আর অর্থনীতিতে যোগ হয়েছে প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা। এই অর্থ অর্থনীতিতে যোগ হলেও সৎ করদাতারা এর বিরোধিতা করে আসছে। অর্থনীতিবিদরাও বারবার এই বিষয়ে সরকারকে পরামর্শ দিয়েছেন। এতে সাময়িক সুবিধা হলেও দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতি হবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন অর্থনীতিবিদরা। সবকিছু বিবেচনায় কালো টাকা সাদা করার অবাধ সুযোগ বন্ধ করতে যাচ্ছে সরকার। আগামী ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটে ১০ শতাংশ কর দিয়ে কালো টাকা সাদা করার অবাধ সুযোগ বন্ধ করার প্রক্রিয়া চলছে।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, যদি ১০ শতাংশ কর দিয়ে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ থাকে, তাহলে যারা ২৫ শতাংশ কর দেন তারাও এই সুযোগ নেয়ার চেষ্টা করবেন। এতে এনবিআরের রাজস্ব আয়ে বিরূপ প্রভাব পড়বে। কালো টাকা সাদা করা বিষয়ে কথা হয় এনবিআরের সংশ্লিষ্ট এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে। তিনি বলেন, আগামী বাজেটে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ বন্ধ হচ্ছে। তবে কীভাবে বন্ধ হচ্ছে বা অপ্রদর্শিত অর্থ রিটার্নে যোগ করার ক্ষেত্রে কত শতাংশ করে দিতে হবে তা বলতে রাজি হননি তিনি। তবে রাজস্ব আহরণের সুবিধার্থে এই সুযোগ বন্ধ হচ্ছে বলেও জানান এই কর্মকর্তা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিসের সাবেক প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. জাহিদ হোসেন বলেন, বাজেটে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ বন্ধ করে দেয়া উচিত। নির্ধারিত খাতে বিনিয়োগের সুযোগও বন্ধ না করলে এর সুফল মিলবে না। বন্ধ করা না গেলে ২০০৮ সালের মতো নির্ধারিত কর পরিশোধ করার পর আরো নির্ধারিত হারে জরিমানা দিয়ে সাদা করার সুযোগ দেয়া উচিত। তাহলে করদাতাদের মধ্যে অসন্তোষ তৈরি হবে না বলে মনে করেন এই অর্থনীতিবিদ।

এনবিআর সূত্র জানায়, আগামী ২০২১-২২ অর্থবছরে ৩ লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকার রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বেশ কিছু কৌশল নিয়েছে এনবিআর। আগামী বাজেটে রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে রাজস্ব ফাঁকি বন্ধে। নতুন অর্থবছরে করহার না বাড়ালে কর আদায় নিশ্চিত করতে বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছে। ইতোমধ্যে ভ্যাট রিটার্ন জমা নিশ্চিত করতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ভ্যাট গোয়েন্দাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এছাড়া শুল্কায়ন কার্যক্রম সহজ ও ঝামেলামুক্ত করতে কাস্টম কমিশনারদের শুল্কায়নের লিমিট বাড়ছে। অর্থাৎ আগে ৫০ লাখ টাকা রাজস্ব হলে কমিশনাররা পণ্য ছাড় করতে পারেন। এর বেশি হলে এনবিআরের অনুমোদন নিতে হতো। আগামী বাজেটে এর সীমা বাড়ানো হচ্ছে বলে নিশ্চিত করেছে এনবিআর সূত্র।